পারিবারিক কবরস্থানে চির নিদ্রায় শায়িত হলেন সাতক্ষীরা বাসীর প্রিয় শিক্ষক আব্দুল হামিদ


সাতক্ষীরা নিউজ ডেস্ক :: সাতক্ষীরা বাসীর প্রিয় বিজ্ঞান স্যার আব্দুল হামিদ চির নিদ্রায় শায়িত হলেন সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গার পারিবারিক কবর স্থানে।
শনিবার সকাল ১০ টায় ঝাউডাঙ্গা সিনিয়র ফজিল মাদ্রাসা ময়দানে জানাযা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

জানাযা নামাজের আগে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মরহুমের শ্যালক তালা – কলারোয়ার সাবেক সাংসদ হাবিবুল ইসলাম হাবিব, খুয়েট এর ম্যাকানিক্যাল বিভাগের প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার গোলাম কাদের,কলারোয়ার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী গোলাম রব্বানী,সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু নসর, প্রফেসর শহীদুল ইসলাম, কাকডাঙ্গা সিনিয়র মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ মাও রফিউদ্দীন আনসারী,ঝাউডাঙ্গা ফাজিল মাদ্রাসার সাবেক অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল বারী,ঝাউডাঙ্গা ফাজিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওঃ আব্দুল মজিদ,অধ্যক্ষ মাওঃ তোফাইল হোসাইন, নও মুসলীম আব্দুর রহমান, মরহুমের বড় ছেলে বিশিষ্ট সফট্ওয়ার ব্যবসায়ী আমজাদ হোসেন,ছোট ছেলে আজিজুল ইসলাম প্রমূখ।

জানাযায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাতক্ষীরা সরকারী বালক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সমরেশ দাস,বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুন,বাসদের জেলা সভাপতি নিত্যানন্দ সরকার,জেলা গণফোরামের সভাপতি মামুনুর রশিদ,ঝাউডাঙ্গা হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক রেজাউল ইসলাম, ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়ন আঃলীগের সভাপতি রমজান আলী বিশ্বাষ, সাবক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম।

সাবেক সাংসদ হাবিবুল ইসলাম হাবিব বলেন, আমার বড় ভগ্নিপতি আবুল হামিদ একজন আদর্শ,একটা মাডেল,যদিও তিনি ইসলামী আন্দোলনরে সাথে জড়িত ছিলেন কিন্তুু কখনো ভোটে অংশগ্রহন নিজেকে অপমানিত করনেনি। তিনি ছিলেন এলেম শিক্ষাই শিক্ষিত,পরহেজগার, আবার অধুনিক বিজ্ঞান শিক্ষায় শিক্ষিত একজন বি এস সি শিক্ষক।

আবদুল হামিদ স্যার কলারোয়া উপজেলার হামিদপুর মাদ্রাসা থেকে ফাজিল পাশ করে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়ার জন্য নতুন করে নবম শ্রেনীতে ভর্তি হন। বিজ্ঞান বিভাগে এস এস সি, এইচ এস সি ও বি এস সি পাশ করে ১৯৬৮ সালে সাতক্ষীরা বালক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা জীবন শুরু করেন। ১৯৮০ তে বালিকা বিদ্যালয়ে বদলী হন। পরে এই দুই বিদ্যালয়ের সিনিয়র বিজ্ঞান শিক্ষক হিসেবে কর্ম জীবন অতিবাহিত করেন। শ্রেণীকক্ষে পাঠদানের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান মনোষ্ক করে গড়ে তোলা এবং বিজ্ঞান মেলার আয়োজনের মধ্য দিয়ে তিনি সকলের প্রিয় শিক্ষক হয়ে ওঠেন। তিনি ১৯৯৯ সালে অবসরের পর তিনি তাঁর গ্রামের বাড়ি ঝাউডাঙ্গাতে বসবাস করছিলেন।

তিনি শুক্রবার সকাল ১০টা ৫০ মিনিটের ঢাকার ইবনেসিনা হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। তিনি স্ত্রী, ৩ পুত্র, ৫ কন্যা ও অসংখ্য গুনগ্রহী রেখে গেছেন।






সংযুক্তিমূলক সংবাদ ..

  • সাতক্ষীরায় নানা আয়োজনে বেগম রোকেয়া দিবস পালন
  • সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ফলজ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপণ
  • হঠাৎ পৌর ভূমি অফিসে জেলা প্রশাসক: আটক দালালের ১৫ দিনের কারাদন্ড, তিন তহশীলদারকে বদলী
  • সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন সফল করার লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা
  • জালিয়াতি ও প্রতারক চক্রের হাত থেকে বাঁচতে সংবাদ সম্মেলন
  • সাতক্ষীরা অঞ্চলের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সংস্কৃতি তুলে ধরার উদ্যোগ নেওয়া হবে : জেলা প্রশাসক
  • সাতক্ষীরা সদর উপজেলা ডাচ বাংলা ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং এর উদ্বোধন
  • সাতক্ষীরায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ছাত্রলীগ কর্মী নিহত : অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার
  • Leave a Reply