চাম্পাফুল কালিবাড়ি বাজারে ঈদের কেনাকাটা জমে উঠেছে

আশাশুনি প্রতিনিধি:
আশাশুনিতে কালিগঞ্জ সীমান্ত বর্তী চাম্পাফুল কালিবাড়ি বাজার জমে উঠেছে ঈদের কেনা কাটা। ঈদের আন্দকে পূর্ণতা দিতে যে জিনিসটা ছাড়া ঈদ কল্পনা করা যায় না তা’হলো নতুন জামা কাপড়। জ্যৈষ্ঠের প্রচন্ড তাপদহ এর মধ্যে দিয়ে পরিবার, আত্মীয় স্বজনকে নতুন কাপড় উপহার দিতে এক দোকান থেকে অন্য দোকান চুসে বেড়াচ্ছে ক্রেতারা। যারা পছন্দের নির্দিষ্ট ডিজাইনের দ্বারা নিজের কাপড় বানাতে যান তারা শপিং সম্পন্ন করেছে আগে ভাগেই। তারা এখন ভিড় জমাচ্ছে দর্জি পাড়ায়। প্রথম দিকে ভিড় ছিল থান কাপড়ের দোকান গুলোতে। এখন সে ভিড়কে স্বাগত জানাচ্ছে তৈরি পোশাকের দোকানগুলো। কেনা কাটার জগতে আশাশুনির কলিগঞ্জ এর সীমান্ত বর্তী চাম্পাফুল বাজার ঘুরে মঙ্গলবার সন্ধায় ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ক্রেতারা জানালেন, চাম্পাফুল বাজারে জয় বস্তালয়, সহ অনেক গুলো বড় বড় বস্তবিতান থাকায় ভাল জিনিস অপেক্ষাকৃত কম মূল্যে পাওয়া যায় বিধায় এখানে কেনা কাটা করে স্বাদছন্দ বোধ করেন তারা। ঈদের কেনাকাটা করতে আসা ইয়াসমিন নাহার নামে একজন ক্রেতার সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমাদের আশ-পাশের এলাকার সব চাইতে বড় বাজার বলে আমরা এখান থেকে ঈদের মার্কেট করছি গাউন, থ্রি-পিছ, বাঁচ্চাদের জন্য কাপড়, জুতা ইত্যাদি। তিনি আরও জানান, ঈদের সময় দোকান গুলোতে অনেক ভিড় থাকে তার পরেও এবছর পছন্দের জিনিস কিনতে পেরে আমি অনেক খুশি। চাম্পাফুল বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, এবছর মেয়েদের গাউন ও ছেলেদের পাঞ্জাবী বেশি বিক্রি হচ্ছে। কয়েকজন ক্রেতা জানালেন, জ্যৈষ্ঠের প্রচন্ড তাপদহে সারাদিন রোজা রেখে এক দোকান থেকে অন্য দোকানে ছুটাছুটি করতে কষ্ট হলেও ঈদের আনন্দের কাছে তা কিছুই না। স্কুল পড়ুয়া ছাত্রী জানান, রোজা রেখে মার্কেটিং করা অনেক কষ্ট, তার উপর জ্যৈষ্ঠের প্রচন্ড গরম আর মানুষের ভিড়তো আছেই। শোভনালী থেকে কেনাকাটা করতে আসা সাগর জানান, বাবার জন্য পাঞ্জাবী, মায়ের জন্য শাড়ী, ভাই, ও বোনের জন্য থ্রি-পিছ, পাঞ্জাবী ও জিন্স প্যান্ট এছাড়া আত্মীয় স্বজনের জন্য অন্যান্য জিনিস কেনাকাটা করেছি। তিনি আরও জানান, এবছর বাজারের দোকান গুলোতে কালেকশন অনেক ভাল। বাজারের পরিবেশ খুবই ভাল লাগছে। আমি কেনা কাটা করে অনেক আনন্দ পাচ্ছি। ঈদ আসতে বাকী আর মাত্র কয়েক দিন। নতুন কাপড় ঈদ আনন্দের মাত্রাকে বাড়ীয়ে দেবে আরও কয়েক গুন এমনটাই মনে করছে সকলেই। এছাড়া ফুটপাতের গুলোতে আতর, টুপির দোকান সহ কসমেটিক্স দোকান গুলোতে প্রচুর ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ####






সংযুক্তিমূলক সংবাদ ..

  • আশাশুনিতে ১৮টি গৃহ নির্মান সম্পন্ন ॥ প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন ১৩ অক্টোবর
  • কুল্যার রুহুল আমিন ৭০ বছর বয়সেও বয়স্ক ভাতার সুযোগ পাননি
  • গুনাকরকাটি টু তেঁতুলিয়া সড়কে ভাঙ্গন রোধে উদ্যোগ নেয়নি কেউ
  • বড়দল ইউনিয়ন আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগ গঠন
  • আশাশুনিতে সংযোগ তৈরি বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত
  • কুল্যায় চেয়ারম্যান প্রার্থী সালামের মতবিনিময় সভা
  • আশাশুনিতে মা ইলিশ ধারা ও ক্রয়- বিক্রয় বন্দ সংক্রান্ত প্রচার
  • কাদাকাটিতে শারদীয় দুর্গোসবের আড়ম মেলা অনুষ্ঠিত
  • Leave a Reply