উর্দ্ধমুখী ঝিকরগাছা বাজার,নিয়ন্ত্রণের তাগিদ সাধারণের

ঝিকরগাছা(যশোর) প্রতিনিধি: রমজান পূর্ববর্তী সময়ের চেয়ে রমজান চলাকালীন সময়ে ঝিকরগাছায় নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য মূল্যের উর্দ্ধগতি লক্ষ্য করা গেছে । নিয়ন্ত্রণহীন ঝিকরগাছায় নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূলের বাজারে তাল মিলিয়ে চলতে হিমশিম খাচ্ছে মধ্যবিত্ত ও নিম্নমধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ । বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতিকেজি ছোলা ৭৭ টাকা, চিনি ৫৮ থেকে ৬৮ টাকা, গোলু ১৬ টাকা, খোলা সয়াবিন তেল ৮৮-৯৫ টাকা,পামওয়েল ৭৫ থেকে ৮০ টাকা, ৩৫ টাকার ময়দা ৪০টাকা, ৩৫ সেমাই ৪০ টাকা, মশুরডাল দেশী ১০০ টাকা, বিদেশী ৬০-৭০ টাকা, মুগডাল ১০০ টাকা, সোলার ডাল ৭৫-৮০ টাকা,মৌসুমি ফল লিচু ১৮০ থেকে ২০০ টাকা কেজি, পাঁকাকলা ৫০-৬০ টাকা কেজি, খেজুর ১২০ থেকে প্রকার ভেদে ৮০০ টাকা পর্যন্ত কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

আঙ্গুর ২৫০-২৬০টাকা কেজি,বেদানা ২২০-২৫০ টাকা, তমমুজ ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি, প্রতিকেজি আম ১০০-১২০ টাকা। রুই, কাতলা ও মৃগেল বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত। চাষের তেলাপিয়া বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা কেজি। ইলিশ মাছ ৬০০ থেকে ৮০০ গ্রাম ওজনের প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০০-৭৫০ টাকায়। এছাড়া ৩/৪ পিচে কেজির জাটকা ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৪০০-৫০০ টাকা কেজি।

মাংসের দামও কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশি মুরগি প্রতিকেজি ৪৫০-৪৭০ টাকা। ফার্মের ব্রয়লার মুরগি ১৯০-২০০ টাকা, ফ্রার্মের সোনালী মুরগী ২৫০-২৬০, প্যারেন্স ২৫০ টাকা। গরুর মাংস প্রতিকেজি ৪৮০ থেকে ৫০০ টাকা। খাসির মাংস প্রতিকেজি ৭০০-৭৫০ টাকা ।

কাঁচা মরিচের ৪০ টাকা, শুকনা মরিচ ১৯০-২০০ টাকা, পিয়াজ দেশি ২৫-৩০, রসুন ৭৫-৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি বেগুন ৭০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পটল, উচ্ছে, কাঁচকলা, টমেটো, কচুলতি, সবুজশাক, লালশাক, ঢেঁড়স, মিষ্টিকুমড়া, মানকচুর দাম বেড়েছে প্রতিকেজিতে ১০/১৫টাকা। প্রতিকেজি টমোটো ৭৫-৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ডাটা,পুঁইশাক বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ২০-২৫ টাকা। কচুরলতি ৩০ টাকা, ১০ টাকা কেজির শসার বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকায়। প্রতিজোড়া কাগুঁজে লেবু ১৫-২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে বাজার নিয়ন্ত্রণ না করা গেলে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয় করা সম্ভব হবেনা বলেও অনেকের অভিমত । রমজানে মানুষের এত ভোগান্তি দিয়ে ব্যাবসায়ীদের কি লাভ ?-এমন প্রশ্নও করে বসেন এক ক্রেতা। উত্তরে এক ব্যাবসায়ী বলেন,ক্রেতারা অতিরিক্ত মালামাল ক্রয় করার কারনে চাহিদা একটু বেশি। চাহিদা বেশি হলে দাম কিছুটা বৃদ্ধি হওয়াটাই স্বাভাবিক। ####






সংযুক্তিমূলক সংবাদ ..

  • রংপুরে আনসার ভিডিপির দায়িত্ব নিলেন নয়া জেলা কমান্ড্যান্ট জিয়াউর রহমান
  • দেশকে যেন আমরা আরো উন্নত সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলতে পারি —-শেখ আফিল উদ্দিন এমপি
  • খর্ণিয়া ইউনিয়ন আ’লীগের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত
  • শোভনা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত
  • বেনাপোলে ভারতীয় রুপি ও ফেন্সিডিল উদ্ধার
  • নওগাঁয় কৃষকদের মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত
  • যশোরের বেনাপোলে ভারতীয় রুপি ও ফেন্সিডিল উদ্ধার
  • ইফতার মাহফিল এর মাধ্যমে “লায়ন এবং লিও এর মিলনমেলা”
  • Leave a Reply