সংস্কারের দাবি

কলারোয়ার খোরদো বাওড়ে বিলীন হচ্ছে রাস্তা ও কবরস্থান!!

কলারোয়া প্রতিনিধি ;: সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার দেয়াড়ায় প্রাচীন জনপদের সড়ক ও গরীব-মধ্যবিত্তদের কবরস্থানটি বাওড়ের ভয়াল থাবায় ভেঙ্গে বিলীন হতে চলেছে। অবশিষ্ট অংশটুকুও বাওড়ে মিলিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয়রা।

উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের খোরদো-দলুইপুর বাওড় এলাকার ভুক্তভোগী অনেকে জানান- দলুইপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকা থেকে তালুনদিয়ার গড়গড়িয়া বাজার পর্যন্ত প্রায় দেড় কি.মি বাওড়ের উপরের রাস্তাটি প্রাচীন আমলে নির্মিত। বর্ষা মৌসুমে ও নিয়মিত সংষ্কারের অভাবে রাস্তাটি বাওড়ে ভেঙ্গে যাওয়ায় এটি চলাচলে অযোগ্য হয়ে পড়েছে।

শুধু তাই নয়, ধাওয়া করেছে মানুষের বসত ভিটার দিকে, বাপ-দাদার পৈতৃক সম্পত্তিতে।

দেখা যায়- উপজেলার বৃহত্তম জলাকারের মধ্যে খোরদো বাওড়ই অন্যতম। যার চতুর্দিকে অবস্থান করছে শত শত বাড়ি-ঘর, হাজারো মানুষ। ২০০০ সালের বন্যা বা তার আগেই বাওড়ের ভাঙ্গনে প্রাচীন এ জনপদটি বিলীন হতে শুরু করে। স্থানীয় গ্রাম্য রাস্তা, ফসলি ক্ষেত, গাছগাছালি এমনকি কবরস্থানও ভেঙ্গে বিলীন হতে শুরু করে বাওড়ে।

স্থানীয়রা জানান- বর্ষা মৌসুমের বৃষ্টি, বাওড়ের পানির ঢেউয়ের শক্তি আর দীর্ঘদিন সংস্কার না করার ফলে দূর্ভোগে পড়েছেন বাওড় পার্শ্ববর্তী জনপদের বাসিন্দারা।

বাওড়ের পাড় ও প্রাচীন রাস্তা সংস্কার এবং কবরস্থান অক্ষুন্ন রাখতে কার্যকর উদ্যোগ নিতে সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের প্রতি আহবান জানিয়েছেন ভূক্তভোগিরা।

কলারোয়া প্রতিনিধি ;: সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার দেয়াড়ায় প্রাচীন জনপদের সড়ক ও গরীব-মধ্যবিত্তদের কবরস্থানটি বাওড়ের ভয়াল থাবায় ভেঙ্গে বিলীন হতে চলেছে। অবশিষ্ট অংশটুকুও বাওড়ে মিলিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয়রা।

উপজেলার দেয়াড়া ইউনিয়নের খোরদো-দলুইপুর বাওড় এলাকার ভুক্তভোগী অনেকে জানান- দলুইপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকা থেকে তালুনদিয়ার গড়গড়িয়া বাজার পর্যন্ত প্রায় দেড় কি.মি বাওড়ের উপরের রাস্তাটি প্রাচীন আমলে নির্মিত।

বর্ষা মৌসুমে ও নিয়মিত সংষ্কারের অভাবে রাস্তাটি বাওড়ে ভেঙ্গে যাওয়ায় এটি চলাচলে অযোগ্য হয়ে পড়েছে। শুধু তাই নয়, ধাওয়া করেছে মানুষের বসত ভিটার দিকে, বাপ-দাদার পৈতৃক সম্পত্তিতে।
দেখা যায়- উপজেলার বৃহত্তম জলাকারের মধ্যে খোরদো বাওড়ই অন্যতম। যার চতুর্দিকে অবস্থান করছে শত শত বাড়ি-ঘর, হাজারো মানুষ। ২০০০ সালের বন্যা বা তার আগেই বাওড়ের ভাঙ্গনে প্রাচীন এ জনপদটি বিলীন হতে শুরু করে। স্থানীয় গ্রাম্য রাস্তা, ফসলি ক্ষেত, গাছগাছালি এমনকি কবরস্থানও ভেঙ্গে বিলীন হতে শুরু করে বাওড়ে।

স্থানীয়রা জানান- বর্ষা মৌসুমের বৃষ্টি, বাওড়ের পানির ঢেউয়ের শক্তি আর দীর্ঘদিন সংস্কার না করার ফলে দূর্ভোগে পড়েছেন বাওড় পার্শ্ববর্তী জনপদের বাসিন্দারা।

বাওড়ের পাড় ও প্রাচীন রাস্তা সংস্কার এবং কবরস্থান অক্ষুন্ন রাখতে কার্যকর উদ্যোগ নিতে সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের প্রতি আহবান জানিয়েছেন ভূক্তভোগিরা।






সংযুক্তিমূলক সংবাদ ..

  • কলারোয়া পৌরসভায় পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন কমিটির সভা
  • কলারোয়ায় স্যানিটেশন ব্যবস্থাপনা ও উন্নত স্বাস্থ্যাভ্যাস পরিচর্যা বিষয়ক কর্মশালা
  • কলারোয়ায় প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ারসহ নানা সামগ্রী বিতরণ
  • কলারোয়ায় আদ-দ্বীনের ইফতার মাহফিল
  • কলারোয়ায় ‘বিশ্ব মা দিবস’ উদযাপন
  • কলারোয়ায় ১০টাকার চাল না পেয়ে কার্ডধারীদের মানববন্ধন, স্মারকলিপি প্রদান
  • কলারোয়ায় ওয়ারেন্টভূক্ত ৫ ব্যক্তি আটক
  • Leave a Reply