ঝাউডাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এসএসসি ১৯৯৭ ব্যাচ

পূনর্মিলনী ও ফ্যামিলি গেট টুগেদার অনুষ্ঠিত হবে‍‍‍‌‌‌‌‌‍‍ পবিত্র “ঈদুল আজহার” পরের দিন

সাতক্ষীরা নিউজ ডেস্ক :: ঝাউডাঙ্গা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ’৯৭ ব্যাচের বন্ধু-বান্ধবীদের ‘১ম পুনর্মিলনী ও ফ্যামিলি গেট টুগেদার ২০১৯’ অনুষ্ঠিত হবে‍‍‍‌‌‌‌‌‍‍ পবিত্র‍ “ঈদুল আজহার” পরের দিন।

এ উপলক্ষে গত ৪ জুন, ২০১৯ (২৯ রমজান) মঙ্গলবার আমাদের বন্ধু ডাক্তার সুমনের চেম্বারে ইফতারের পরে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান পূর্ববর্তী এক প্রাক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

উক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত কতিপয় বন্ধুদের খোলামেলা আলোচনায় যে সিন্ধান্তসমূহ গৃহীত হয় তা নিম্নে সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো :

পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানকে সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য গৃহীত সিন্ধান্তসমূহ :

১. অনেকগুলো বিষয় বিবেচনা করে রেজিস্ট্রেশন ফি নির্ধারণ করা হয়। যেহেতু এটা ফ্যামিলি গেট টুগেদার সেহেতু বন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের তিন ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করে রেজিস্ট্রেশন ফি নির্ধারণ করা হয়েছে।

ক্যাটাগরি ও রেজিস্ট্রেশন ফির হার নিম্ন রুপ :

ক্যাটাগরিসমূহ ক্যাটাগরির বিবরণ টাকার পরিমাণ

ক্যাটাগরি – ১ বন্ধু-বান্ধবী জন্য ৬০০/=
ক্যাটাগরি – ২ বন্ধু-বান্ধবীদের স্ত্রী/স্বামী/অন্যান্য আত্মীয়-স্বজনের
জন্য ৫০০/=
ক্যাটাগরি – ৩ বন্ধু-বান্ধবীদের ৪ (চার) বছরের ঊর্ধ্বে বয়সী প্রতিটি
সন্তানের জন্য ৩০০/=
ক্যাটাগরি – ৪ বন্ধু-বান্ধবীদের ৪ (চার) বছরের নিম্নে বয়সী
প্রতিটি সন্তানের জন্য প্রযোজ্য নয় ।

বি. দ্র. : ক্যাটাগরি- ৪ এর সন্তানদের জন্য কর্তৃপক্ষ কোনো রকমের টোকেন ও খাদ্য পরিবেশন করবে না। সেক্ষেত্রে বন্ধু-বান্ধবীদেরকে নিজ দায়িত্বে তাদের ছোট সন্তানদের খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে।

২. রেজিস্ট্রেশনের শেষ তারিখ ৩১ জুলাই, ২০১৯ রাত ১২টা পর্যন্ত। এই তারিখের পরে আমরা আর কোনো বন্ধু-বান্ধবীদের নাম নতুন করে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবো না।

উল্লেখ্য, ঝাউডাঙ্গা বাজারে যে বন্ধুরা বিভিন্ন ব্যবসায়িক কারণে বর্তমানে স্থায়ীভাবে অবস্থান করছে এবং দেশে ও দেশের বাহিরে থেকে যারা অনুষ্ঠানকে সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছে তারা তাদের পরিবারসহ সবার আগে ৩০ জুন, ২০১৯ তারিখের মধ্যে তাদের ও তাদের পরিবারের সদস্যদের নাম রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করে ফেলবে।

৩. শুধু ব্যাচমেট সকল বন্ধু ও বান্ধবীদের জন্য একই কালারের টি-শার্ট হবে। কোন বন্ধু/বান্ধবীর কোন সাইজের টি-শার্ট লাগবে তা সে নাম রেজিস্ট্রেশনের সময় দায়িত্বপ্রাপ্ত বন্ধুকে অবশ্যই উল্লেখ করে দিবে। আর মঞ্চের উপরে শুধু ব্যাচমেটদের গ্রুপ ছবি তোলার সময় অবশ্যই সকল বন্ধু-বান্ধবীকে এই টি-শার্ট পরিধান করতে হবে।

৪. স্কুল বাউন্ডারির মধ্যে মঞ্চ ও প্যান্ডেল তৈরি করতে হবে। মঞ্চের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের আয়তন কত হবে সেটা পরে ঠিক করা হবে। যেহেতু আগস্ট মাসে বর্ষাকাল থাকবে সেহেতু বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে আমাদের অনুষ্ঠানের মঞ্চ স্কুল অডিটোরিয়ামেও হতে পারে। মঞ্চের উপরে খুব সিম্পল একটা সাউন্ড সিস্টেমও থাকবে।

৫. যেহেতু স্কুল থেকে পাস করে বের হওয়ার অনেকদিন পরে এসে আমরা আমাদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান করতে যাচ্ছি তাই ঐ দিনের বিশেষ বিশেষ স্মৃতিকে ধরে রাখার জন্য একজন পেশাদার ফটোগ্রাফার ভাড়া করা হবে। তিনি আমাদের দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের সকল ছবি ক্যামেরাবন্দি করবেন। প্রয়োজনে তিনি বিশেষ বিশেষ অংশের ভিডিও করবেন। পরবর্তীতে এই ছবিগুলো দিয়ে সিডি তৈরি করে অংশগ্রহণকারী সকল বন্ধু-বান্ধবীকে একটি করে কপি দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

৬. রেজিস্ট্রেশন ও র‌্যাফের ড্র-এর রিসিট/টিকিট তৈরি করার দায়িত্ব থাকবে জাহাঙ্গীর, মুসা ও মিন্টুর উপরে। তারা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এগুলো বই আকারে তৈরি করে এলাকায় ইমামুল, জাহাঙ্গীর, রাজু ও রসুলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করবে।

৭. বন্ধু-বান্ধবীদের নিকট থেকে রেজিস্ট্রেশন বাবদ টাকা সংগ্রহের দায়িত্বে থাকবে আপাতত তিন জন। তাদের নাম ও মোবাইল নম্বর নিচে দেওয়া হলো :

বন্ধুর নাম মোবাইল নম্বর ও পেমেন্টের ধরন বন্ধুর অবস্থান
গোলাম রসুল ০১৭৭৮-৬৩২৬১১ (বিকাশ এজেন্ট) ঝাউডাঙ্গা হাইস্কুলের সামনে
রাজু আহমেদ ০১৭১৬-১৬৬৪১৪ (বিকাশ পার্সোনাল) পাথরঘাটা ব্রিজের পশ্চিম পাশে
জাহাঙ্গীর আলম ০১৭১৮-৭৯৯২৭৮ (বিকাশ পার্সোনাল) উত্তরা, ঢাকা

বি. দ্র. :  উপরের যে কোনো নম্বরে টাকা বিকাশ করা যাবে। যে বন্ধু/বান্ধবী যে নম্বরে টাকা বিকাশ করবে সেই নম্বরে টাকা নিশ্চায়নের জন্য নিজের নাম ও ঠিকানাসহ আলাদা একটি এসএমএস দিবে টাকা পাঠানোর পর। আর প্রয়োজন অনুসারে এখানে অন্যান্য বন্ধু ও তাদের বিকাশ নম্বর সংযুক্ত করা হবে।

৮. কোনো Sponsor বা Add সংগ্রহ করা যেতে পারে কি-না তা সবাই মিলে চেষ্টা করতে হবে।

৯. আমাদের সকালের অনুষ্ঠানে খেলাধুলার একটি ইভেন্ট থাকবে। সেটা হবে নিম্ন রূপ :

ক্র. নং প্রতিযোগিতায় যারা অংশগ্রহণ করবে প্রতিযোগিতার নাম
১ – ৫ (পাঁচ) বছরের নিচে বয়স সকল সন্তান বিস্কুট দৌঁড়
২ – ৫ (পাঁচ) বছরের উপরে বয়স সকল সন্তান (ছেলে) মোরগ লড়াই
৩ – ৫ (পাঁচ) বছরের উপরে বয়স সকল সন্তান (মেয়ে) সুঁচে সুতা
পরানো
৪ আমাদের বান্ধবী ও বন্ধুদের স্ত্রী পিলো পাসিং
৫ আমাদের বন্ধু ও বান্ধবীদের স্বামী বল থ্রোয়িং
বি. দ্র. : প্রত্যেক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিজয়ী ১ম জনকে শুধু পুরস্কার প্রদান করা হবে। আর ১ নম্বর প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী সকল প্রতিযোগী সন্তানকে সান্তনা পুরস্কার প্রদান করা হবে।

১০. ছবি তোলার জন্য ভিন্ন আঙ্গিকের কয়েকটি ফটোফ্রেম তৈরি করতে হবে। যে ফ্রেমগুলো আমাদেরকে আমাদের স্কুল লাইফে ফিরিয়ে নিয়ে যাবে।
১১. দুপুরের খাবারটি নির্দিষ্ট খাবারের বুথ থেকে আমরা প্যাকেট আকারে সকলকে সরবরাহ করবো। খাবারের মেন্যুতে সম্ভাব্য যে খাবারগুলো থাকবে তা হলো-
১. পর্যাপ্ত রাইস ও ২ পিচ খাসির মাংসসহ কাচ্চি বিরিয়ানি
২. রোস্ট/ ডিম (অতিরিক্ত)
৩. মোজো (১ পিচ)
৪. পানি (হাফ লিটার)
বি. দ্র. : রেজিস্ট্রেশন টিকিটের সাথেই দুপুরের লাঞ্চ ও বিকালের হালকা নাস্তার টোকেন থাকবে। টোকেন ছাড়া কেউ দুপুরের খাবার ও বিকালের নাস্তা গ্রহণ করতে পারবে না। তাই অনুষ্ঠানের দিন সবাইকে অবশ্যই রেজিস্ট্রেশন টিকিট সঙ্গে করে নিয়ে আসতে হবে। বিকালের নাস্তায় সকলের জন্য একটি করে আপেল অথবা আইসক্রিম থাকবে। আর সকালের কোনো নাস্তার ব্যবস্থা আমরা করবো না।

১২. দেশে ও দেশের বাহিরে অবস্থানকারী কিছু বন্ধু/বান্ধবী যারা ভালো অবস্থানে আছে তাদের কাছ থেকে রেজিস্ট্রেশন ফি-এর অতিরিক্ত কিছু টাকা নিতে হবে/দিতে হবে। দিনব্যাপী আমাদের এই পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানকে সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য বন্ধু-বান্ধবীদের এ সহযোগিতা আমাদের একান্তভাবেই প্রয়োজন। আমরা সকলেই আশাকরি বন্ধুদের এ সহযোগিতাটুকু পাবো ইনশাআল্লাহ।

১৩. প্রবাসী বন্ধুদের অনেকের শত ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও হয়তো ব্যস্ততা/ঝামেলার কারণে আমাদের অনুষ্ঠানে আসতে পারবে না। সেক্ষেত্রে তাদের স্ত্রী ও সন্তানদের সাথে তাদের পরিবারের যে কোনো একজন আত্মীয় অনুষ্ঠানে বন্ধুদের পরিবর্তে আসবে।

১৪. স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, প্রধান শিক্ষক, সহকারি প্রধান শিক্ষক এবং আমাদের সময়ের যে সকল শিক্ষক/শিক্ষিকা ও র্ককর্তা/কর্মচারি এখনো স্কুলে কর্মরত আছেন তাদেরকে আমাদের অনুষ্ঠানে দাওয়াত দিতে হবে। আর দাওয়াত দেওয়ার এ কাজটি করবেন আমাদের বন্ধু বেলাল, ইমামুল ও জাহাঙ্গীর।

১৫. শুধু বন্ধু ও বান্ধবীদের নিয়ে অনুষ্ঠানের দিন সকালে একটি র‌্যালি থাকবে। র‌্যালিতে সকলকে আমাদের প্রদত্ত ঞ-ংযরৎঃটি অবশ্যই পরিধান করতে হবে। র‌্যালিটি স্কুলের মেইন গেট থেকে যাত্রা শুরু করে ঝাউডাঙ্গা বাজার প্রদক্ষিণ করে আবার স্কুল ক্যাম্পাসে ফিরে আসবে।

১৬. অনুষ্ঠানের দিন খুব সকালে স্কুলের মেইন গেট ও মূলমঞ্চ ফুল, বেলুন, ব্যানার ও ফেস্টুনসহ নানা উপকরণ দিয়ে সাজাতে হবে। প্রয়োজনে সকলের অবগতির জন্য অনুষ্ঠান শুরুর এক সপ্তাহ আগে স্কুলের মেইন গেটে একটি ব্যানার টাঙিয়ে দেওয়া যেতে পারে।

১৭. মূল মঞ্চের জন্য ১টি এবং স্কুলের মেইন গেটের জন্য ১টি সহ মোট ২টি বড় ব্যানার তৈরি করতে হবে। ছবি তোলার জন্য কয়েকটি ফটোফ্রেম তৈরি করতে হবে। রেজিস্ট্রেশনের জন্য ৩০০টি টিকিট এবং র‌্যাফেল ড্র-এর জন্য ৩০০টি টিকিট তৈরি করতে হবে। মূল ব্যানার, রেজিস্ট্রেশন টিকিট ও র‌্যাফেল ড্র-এর টিকিটে আমাদের ৯৭ ব্যাচের লোগো এবং আমাদের স্কুলের লোগোটি অবশ্যই থাকতে হবে।
১৮. ভবিষ্যতে আমরা একটি স্মরণিকা তৈরির চেষ্টা করবো যেখানে আমাদের সকল বন্ধুদের বর্তমান ছবি ও ব্যক্তিগত তথ্যাদি থাকবে। এ স্মরণিকার জন্য আমরা আমাদের বন্ধু-বান্ধবীদের কাছ থেকে কবিতা, নিবন্ধ, প্রবন্ধ, কৌতুক, রম্য রচনা, স্কুল লাইফের স্মৃতি নিয়ে মজার কোনো স্মতিচারণমূলক লেখা ইত্যাদি সংগ্রহ করবো। এটা যেহেতু সময় সাপেক্ষ ব্যাপার তাই ১ম পুনর্মিলনীর পরে এই কাজটি আমরা ধীরে ধীরে করবো ইনশাআল্লাহ।

প্রয়োজনে আমাদের সন্তানদের লেখাও স্মরণিকায় স্থান দেব। লেখাগুলো যে যার জায়গা নিজ দায়িত্বে কম্পিউটারের বিজয় কী-বোর্ডে ঝঁঃড়হহুগঔ ঋড়হঃ-এ কম্পোজ করে আমাদের বন্ধু মিন্টু বা মুসা বা জাহাঙ্গীরের E-mail -এ পাঠিয়ে দিবে। আমাদের উক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত তিনজন বন্ধুর E-mail ঠিকানা হলো নিম্ন রূপ :

বন্ধুর নাম ই-মেইল ঠিকানা বর্তমান অবস্থান :-

নাজিমউদ্দীন মিন্টু nazimiuk@gmail.com সিরাজগঞ্জ
আবু মুসা musasofts@gmail.com গাজীপুর
জাহাঙ্গীর আলমalom.jahangir81@gmail.com ঢাকা
এছাড়াও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের দিন ড়হ ঃযব ংঢ়ড়ঃ-এ বন্ধু-বান্ধবীদের কাছ থেকে ব্যক্তিগত তথ্য নেওয়ার ব্যবস্থা থাকবে।

১৯. র‌্যাফেল ড্র-এর প্রতিটি টিকিটের মূল্য থাকবে ২০/= (বিশ) টাকা মাত্র। একজন ব্যক্তি যতটা খুশি টিকিট সংগ্রহ করতে পারবে। অনুষ্ঠানের দিনেই এই টিকিটগুলো বন্ধু-বান্ধবী ও তাদের আত্মীয় স্বজনের কাছে বিক্রি করা হবে। র‌্যাফের ড্র-এর জন্য ৩টি আকর্ষণীয় পুরস্কারসহ সর্বমোট পুরস্কার থাকবে ২০টি যা আমাদের সাংসারিক কাজের সহায়ক হবে। আর এখান থেকে সংগৃহীত টাকা কোনো সেবামূলক কাজে ব্যয় করা যেতে পারে কি-না তা ভেবে দেখা যেতে পারে। অথবা অনুষ্ঠানের ব্যয় নির্বাহের কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে কি-না তাও ভেবে দেখা যেতে পারে।
২০. সকালের অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে আমরা একটি কেক কাটবো। কেকের ওজন হবে ২০ পাউন্ড। আর আমরা আমাদের ছোট্ট সোনামনি সন্তানদের দিয়ে সেই কেক কেটে পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবো।
২১. যে সমস্ত বন্ধু/বান্ধবীরা আর্থিক সমস্যার কারণে নাম রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে না কিন্তু তারা অনুষ্ঠানে আসতে আগ্রহী আমরা তাদেরকে বাদ দেব না। এক্ষেত্রে যারা নাম রেজিস্ট্রেশনের দায়িত্বে থাকবে শুধু তাদের কাছে সরাসরি এসে অথবা ফোনের মাধ্যমে সেই সমস্ত বন্ধু-বান্ধবীদের তাদের অপারগতার কথা জানাতে হবে। নাম রেজিস্ট্রেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা তখন তাদের নাম রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করে নিবে। আমরা চাই ব্যাচের কোনো বন্ধু-বান্ধবীই যেন অনুষ্ঠান থেকে বাদ না পড়ে।

সকলে যে যার জায়গা থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করলে এবং আমাদের উপর অর্পিত ছোট ছোট দায়িত্বগুলো যথাযথভাবে পালন করতে পারলে আমরা উপরিউক্ত সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হবো।  

আমাদের ব্যাচের “১ম পুনর্মিলনী ও ফ্যামিলি গেট টুগেদার ২০১৯” অনুষ্ঠানটি অনেক সুন্দর ও সফলভাবে সম্পন্ন হবে ইনশাআল্লাহ।

ধন্যবাদান্তে -
মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, উত্তরা, ঢাকা।





সংযুক্তিমূলক সংবাদ ..

  • সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে জাতীয় শোক দিবস পালন,বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাঙ্গালি জাতির মুক্তি সনদ
  • সাতক্ষীরা জেলা ট্রাকমালিক সমিতির শোক দিবস পালন
  • বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকীতে সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে কোরআন খতম ও দোয়া অনুষ্ঠান
  • সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় জাতীয় শোক দিবস পালিত
  • সাতক্ষীরায় ভারতের কৌশিষ হাসপাতাল ব্যাঙ্গোলোর ইনফরমেশন সেন্টার’র উদ্বোধন করলেন এমপি রবি
  • সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামালের মত জেলা প্রশাসক দেশের প্রতিটি জেলায় দরকার
  • ডেঙ্গু প্রতিরোধে বাড়ি বাড়ি গিয়ে রোভার স্কাউটদের উদ্ভুদ্ধকরণ
  • সাতক্ষীরায় রোভার স্কাউটদের মিলনমেলার প্রাণের উচ্ছ্বাস
  • Leave a Reply