২৩ মে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার বড়হর ইউপি নির্বাচন প্রার্থীদের নেই কোন প্রচারণা ভোটাররা নিশ্চুপ

satkhira-news-logo-original-900


মারুফ সরকার,সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ::
আগামী ২৩মে সিরাজগঞ্জের উল্রাপাড়া উপজেলার বড়হর ইউনিয়ন পরিষদের (দুইবার স্থগিত হওয়া) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

তবে এই নির্বাচন নিয়ে এলাকাবাসীদের মধ্যে নেই কোন উৎফল্ল আনন্দ, নেই প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা। ইতিপূর্বে দুই দফায় নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় প্রার্থী ও ভোটারদের মধ্যে রয়েছে উদ্বেগ ও উৎকন্ঠা।

প্রার্থী ও ভোটারদের সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনের আর মাত্র ৬ দিন বাকি থাকলেও পুরো এলাকা একেবারেই নিরুত্তাপ। কোথাও পোষ্টার পর্যন্ত সাটানো হয়নি। চেয়ারম্যান, মেম্বর প্রার্থীদের কোন দৌড় ঝাঁপ নেই। নেই বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাওয়ার চিরায়িত দৃশ্য। নেই মাইকের কান ঝাঁঝাঁনো শব্দ। ভোটারদের মধ্যেও নেই সাড়া বা আগ্রহ। সব মিলিয়ে যেন শুন সান অবস্থা। উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়নের সীমানা নির্ধারণ নিয়ে অলিপুর গ্রামের বাসিন্দা মোকছেদ আলী উচ্চ আদালতে একটি মামলা দায়েরের পর গতবছরের ৪জুন/১৬ তারিখে প্রথম দফায় ঘোষিত নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়।

দ্বিতীয় দফায় বর্তমান দায়িত্বরত ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম চৌধুরী পুন:তফশিল ঘোষণার দাবিতে উচ্চআদালতে আর একটি মামলা দায়ের করেন। আদালতের আদেশে চলতি বছরের ১২ এপ্রিল নির্বাচন কমিশন দ্বিতীয় দফায় নির্বাচন আবারও স্থগিত করে। দু’বারই নির্বাচন অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি শেষে ভোটের আগের দিন আদালতের আদেশে নির্বাচন স্থগিত করা হয়। এবার ৩য় বারের মত বড়হর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের তারিখ নির্ধারিত রয়েছে ২৩ মে। চেয়ারম্যান প্রার্থী রয়েছেন ৫ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা সদস্যসহ সাধারন সদস্য প্রার্থী রয়েছেন ৮১ জন।

চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন জহুরুল হাসান ওরফে নান্নু, আলমগীর হোসেন তালুকদার, শফিকুল ইসলাম খান, বুলবুল আহমেদ ও মওলানা মানছুর রহমান। সরেজমিনে বড়হর ইউনিয়নে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে নির্বাচনের কোন শোরগোল নেই। ভোটারদের এই নির্বাচনের প্রতি কোন আগ্রহ নেই। চেয়ারম্যান ও সদস্য প্রার্থীরাও প্রচারণায় নামেন নি। কথা হয় পাগলা গ্রামের ভোটার শাহ আলম, রেবেকা পারভীন, আব্দুল আজিজ, ব্রম্মকপালিয়া গ্রামের এসারত আলীসহ অনান্যদের সঙ্গে। তারা জানান, বার বার নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় ৩য় বারও এখানে নির্বাচন হবে বলে এখনও বিশ্বাস রাখতে পাচ্ছিনা।

তাই তাদের মধ্যে এ বিষয়ে নেই কোন তৎপরতা বা উৎসাহ। একেবারেই চুপ চাপ আছি। ভোট হবে শুনেছি। কবে হবে সেইতারিখও এখন মনে নেই। কারন প্রার্থীরা আসলে তো তারিখ মনে থাকবে। চেয়ারম্যান প্রার্থী জহুরুল হাসান বলেন, দু’বার ব্যাপক প্রচার প্রচারণায় নেমে প্রার্থীরা প্রচুর শ্রম ও অর্থ ব্যয় করেছেন। কিন্তু শেষে নির্বাচন হয়নি। এবারও নির্বাচন আবার স্থগিত হবার জনশ্রুতি রয়েছে। তাই মাঠে নেমে নতুন করে আবার অর্থ ব্যয় করতে চাচ্ছেন না। ড়হর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের মেম্বর প্রার্থী বাবর আলী জানান, কিছু অসৎ ভোটার এখন সুযোগ বুঝে পর্দার অন্তরালে থেকে প্রার্থীদের নিকট থেকে কিছু অর্থ হাতিয়ে নেবার পাঁয়তারা করছে। তাই নতুন করে আর এদের ফাঁদে পা দিতে চাই না। নির্বাচন হলে ফল যা হয় হবে।

এ ব্যাপারে উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা উত্তম কুমার জানান, ৩য়দফার ২৩ মে তারিখে নির্বাচন অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। পুনরায় নির্বাচন স্থগিত হবার বিষয়ে কোন তথ্য তাদের জানা নেই। সুষ্ঠভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য আইন সৃংখলা বাহিনীসহ প্রিজাইডিং ও পোলিং কর্মকর্তাদের দায়িত্বও বন্টন করা হয়েছে।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • সিরাজগঞ্জে লরির চাপায় পিতা ও দুই পুত্র নিহত
  • সিলেটে পাসের হার বাড়লেও কমেছে জিপিএ-৫ প্রাপ্তির সংখ্যা
  • চেয়ারম্যানের নির্দেশ অমান্য করে সরকারি রাস্তার উপর পাকা ঘর নির্মাণ
  • ড্রেজার মেশিন বালু উত্তোলন বন্ধ ও নদী ভাঙ্গন রোধে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা
  • পাইকগাছায় শিল্প-বাণিজ্য মেলার নামে মাঠ দখল : বিভিন্ন মহলের ক্ষোভ
  • সিরাজগঞ্জে কাজিপুরে রেড ক্রিসেন্টের ত্রান বিতরণ
  • সিরাজগঞ্জে পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ নিহত-৩
  • তিন মাসে নয় দফা ভাঙ্গনে নদী তীরবর্তী মানুষের মধ্যে আতংক