সিরাজগঞ্জের তাড়াশে ইভটিজিংয়ের শিকার গৃহবধূর আত্মহননের চেষ্টা

satkhira-news-logo-original-900

মারুফ সরকার, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :: সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় ইভটিজিংয়ের শিকার হয়েছে এক গৃহবধূ আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। মুমূর্ষু অবস্থায় স্বজনরা তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

স্বজনরা অভিযোগ করেন, প্রতিবেশী সুদের কারবারি সোহেল রানা প্রায়ই ওই গৃহবধূকে উত্ত্যক্ত করে। মানসম্মান বাঁচাতে একপর্যায়ে কিটনাশক খেয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন তিনি। গতকাল শুক্রবার দুপুরে উপজেলার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি টের পেয়ে ওই গৃহবধূকে সিরাজগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসক তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানান।

তারাশ থানা সূত্র জানায়, এ ব্যাপারে এখনো কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।গৃহবধূর স্বজনরা জানান, সংসারের প্রয়োজনে উপজেলার বাঁশবাড়িয়া গ্রামের ওই গৃহবধূর স্বামী একই গ্রামের সোহেল রানার কাছ থেকে চড়া সুদে টাকা ধার নেন। এরপর থেকে সোহেল ওই গৃহবধূর স্বামীর কাছে তাগাদা না দিয়ে বাড়িতে গিয়ে স্ত্রীর কাছে ওই টাকার জন্য তাগাদা দিতে থাকে। আসা-যাওয়ার মাঝে সোহেল ওই গৃহবধূকে কু-প্রস্তাব দিত। বিষয়টি জেনে সোহেলকে ওই বাড়িতে যেতে নিষেধ করেন গৃহবধূর স্বামী। এতে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উত্ত্যক্তের মাত্রা বাড়িয়ে দেয় সোহেল। একপর্যায়ে মানসম্মান বাঁচাতে ওই গৃহবধূ ট্যাবলেট খেয়ে শুক্রবার দুপুরে স্বামীর বাড়িতেই আত্মহননের চেষ্টা করেন।

বিষয়টি টের পেয়ে তাকে সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় বলে জানান স্বজনরা।শনিবার দুপুরে সদর হাসপাতালের সহকারী রেজিস্ট্রার (মেডিসিন) ডা. মনির হোসেন জানান, গ্যাসের ট্যাবলেট খেয়ে অসুস্থ হয়ে শুক্রবার বিকেলে ওই রোগী হাসপাতালে আসেন। তাকে হাসপাতালের পঞ্চম তলার মেডিসিন ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। ভর্তি হওয়ার পর রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল বর্তমানে অবস্থা কিছুটা উন্নতির দিকে।তাড়াশ থানার ওসি মঞ্জুর রহমান বলেন, “আমি ঘটনাটি শুনেছি তবে বিষয়টি সর্ম্পকে কেউ এখনো অভিযোগ করেনি। ” পরিবারের স্বজনরা জানান, রোগীর অবস্থা একটু ভালো হলেই থানায় মামলা দায়ের করা হবে।

উল্লাপাড়ার সলপ রেলস্টেশনে ট্রেনের সঙ্গে নসিমনের সংঘর্ষ

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার সলপ রেলস্টেশনে দুধবোঝায় দন্ডায়মান নসিমনের সঙ্গে ঢাকা থেকে রংপুরগামী চলন্ত ট্রেন ‘রংপুর এক্সপেসের’ সংঘর্ষ হয়েছে। এ ঘটনায় ট্রেনের ইঞ্জিন থেকে দুজন পড়ে গুরুতর আহত হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুর ১২টা ৪০মিনিটের সময় এই দূর্ঘটনা ঘটে।আহতরা হলেন, নাটোর জেলার বাগাতি পাড়া উপজেলার জিতেন্দ্র হালদারের ছেলে লিটন হালদার (২৫) ও লালমনিরহাট জেলার সদরের পশ্চিম আমবাড়ি গ্রামের হোসেন আলীর ছেলে আতাউর রহমান (৩০)।উল্লাপাড়া ফায়ার সার্ভিস ও প্রত্যক্ষ দর্শিদের সূত্রে জানা গেছে, গতকাল শনিবার সলপ রেলস্টেশনের উপর রেল লাইনের পাশে একটি দুধ বোঝাই নসিমন থেকে দুধের ড্রাম নামানো হচ্ছিল। এসময় (১২টা ৪০মিনিটি) এর সময় ঢাকা থেকে রংপুরগামী ‘রংপুর এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি যাওয়ার পথে ইঞ্জিনের সঙ্গে নসিমনের সংঘর্ষ হয়। এ সময় নমিসমনটি ছিটকে পড়ে। ধাক্কা খেয়ে ট্রেনের ইঞ্জিনের পাশে বসে থাকা ওই দুজন যাত্রী ইঞ্জিন থেকে পরে গিয়ে গুরুতর আহত হয়। পরে ফায়ারসার্ভিসকে খবর দিলে তারা এসে দুজনকে উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ ২৫০ সয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করে। ফায়ার সার্ভিস উল্লাপাড়া স্টেশনের স্টেশন মাষ্টার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, দুর্ঘটনার খবর জানার পর ফায়ার সার্ভিসের পিকআপ ভ্যানে তাদেরকে উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ হাসপাতালে পাঠায়। তবে ট্রেনের কোন ক্ষতি হয়নি, ট্রেনটি চলে যায়।হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক মো. আকরামুজ্জামান জানান, দুজনেরই দুটি পা ভেঙ্গে মারাত্কব ভাবে আহত হয়েছেন। দুজনের অবস্থাই আশংকাজনক। একজনকে খাজা ইউনুস আলী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও অপরজনকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • সিরাজগঞ্জে দুই মাদক বিক্রেতা আটক
  • সিরাজগঞ্জে মসজিদ, মন্দির সংস্কারের চেক ও সেলাই মেশিন বিতরন
  • ঈদের কেনাকাটায় কলকাতা যাচ্ছে যশোরের সীমান্ত অঞ্চলের মানুষ
  • সিলেট-ফেঞ্চুগঞ্জ সড়কের দুই পাশের গাছ নিধনে পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা
  • জাতীয় বিদ্যুৎ শ্রমিকলীগ বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র শাখার উদ্যোগে ইফতার মাহফিল
  • চিকিৎসা শাস্ত্রে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ শেরে বাংলা পদক-২০১৭ পাচ্ছেন ডা. মাহি
  • মোল্লারপুরে মসজিদের বাল্ব লাগানোকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ১