উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রশংসনীয় ভূমিকা

তালায় উন্নয়ন কার্যক্রম ক্রমান্বয়ে ত্বরান্বিত ও গতিশীল হচ্ছে

3

সেলিম হায়দার,তালা ::
সাতক্ষীরার তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফরিদ হোসেনের বিচক্ষণতায়এক বছরে উপজেলার উন্নয়ন কার্যক্রম ক্রমান্বয়ে ত্বরান্বিত ও গতিশীল হচ্ছে। জলাবদ্ধতার হাত থেকে মানুষকে রক্ষার্থে বিশেষ ভূমিকা রাখা, কপোতাক্ষ নদ ও তীরবর্তী খালগুলো থেকে নেটপাটা অপসারণ, উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করণ কর্মসূচী ও তাদের স্বাবলম্বী করতে উদ্যোগ, ঈভটিজিং রোধ, মাদক বিরোধী কঠোর অবস্থান, বাল্য বিবাহ দূরীকরণে কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের সুবিধার্থে ফ্যান প্রদান, উপজেলাকে পরিচ্ছন্ন রাখতে পরিচ্ছন্ন ভ্যান সরবরাহ, কপোতাক্ষ ভাঙ্গন রোধে তীরে দুই লক্ষ তালবীজ রোপন, সেটেলমেন্ট অফিসের দালাল বিতাড়িত, সরকারী জমি উদ্ধারে অব্যাহত প্রচেষ্টাসহ নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন তিনি। তাঁর ভূমিকার কারণে কৃষি ঋণসহ সরকারী দাবী আদায় আইনে প্রায় এক কোটি টাকা আদায় হয়েছে। তার দূরদর্শীতা ও থানা অফিসার-ইন-চার্জদের সহায়তায় উপজেলায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যাপক উন্নতি হয়েছে।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে এক বছর আগে অর্থাৎ ২০১৬ সালের ১৯ মে যোগদান করেন মোঃ ফরিদ হোসেন। ঝড়-বৃষ্টি মাথায় নিয়ে দায়িত্বভার গ্রহণ করার পর তালা উপজেলার প্রধান সমস্যা জলাবদ্ধতা তাঁর দৃষ্টিগোচর হয়। এ সময় তিনি ঝাঁপিয়ে পড়েন জলাবদ্ধতা নিরসনে। এক বছরে তালার মানুষের সহযোগিতায় জলাবদ্ধতা ৭০ ভাগ উন্নতি হয়েছে এবং কপোতাক্ষ নদের বাঁধ কাঁটা, মাটি কাটা বন্ধসহ কপোতাক্ষ নদের বালি উত্তোলন বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছে। উপজেলা পরিষদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণে কাজ করা হয়েছে। এছাড়া উত্তরণের সহযোগিতায় তালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২০টি ফ্যান সরবরাহ করার পাশাপশি তালা উপজেলাকে পরিষ্কার-পরিছন্ন রাখতে ডাস্টবিন নির্মাণ ও আবর্জনা অপসারণ ভ্যান সরবরাহ করা হয়েছে। কপোতাক্ষ নদের দু’ধার দিয়ে দুই লক্ষ তাল বীজ রোপন, বিভিন্ন ফলজ ও বনজ বৃক্ষ রোপন, সজিনার বাগান করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রচেষ্টায় সরকারি টিন দিয়ে উত্তরণের সহযোগিতায় ৩০টি ভূমিহীন পরিবারের জন্য ঘর নির্মাণ করি যার নাম রাখা হয় “আজিজ-সুশিল পল্লী”।

এছাড়া বিভাগীয় কমিশনারের মহতি উদ্যোগ খুলনা বিভাগের ভিক্ষুক পুনর্বাসনের অংশ হিসেবে তালা উপজেলায় শতভাগ ভিক্ষুকমুক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। উপজেলা পরিষদের বেদখলকৃত প্রায় দুই একর জমি উদ্ধারের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন তিনি। এছাড়া ভূমি দস্যূদের হাত থেকে খাস জমি রক্ষা ও ভূমি অফিসের সেবার মান বাড়ানোর চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। তিনি এক বছরে ২৬৭ জন রোগীর সেবা নিশ্চিত করেছেন। মাদকের ব্যাপারে কড়া অবস্থান নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফরিদ হোসেন। তিনি ইতোমধ্যে ২৮৭টি মোবাইল কোর্ট করেছেন যারমধ্যে মাদক সংক্রান্ত ছিল ২০০টি। তাঁর প্রচেষ্টায় শতকরা প্রায় ৮০ ভাগ বাল্যবিবাহ কমে এসেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের ভূমিকার কারণে বর্তমানে ১৯৭৩ জন প্রতিবন্ধী ভাতা পেতে সক্ষম হয়েছে। ১০১ জন প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীকে ভাতারর আওতায় আনার পাশাপশি প্রায় ৪শ’ প্রতিবন্ধিকে হুইল চেয়ারসহ বিভিন্ন উপকরণ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া ব্যাপক যাচাই বাছাইয়ের মাধ্যমে ফেয়ার প্রাইজের কার্ডসহ বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা এবং মাতৃত্বকালীন ভাতার কার্ডধারী নির্বাচন করা হয়েছে। জলমহাল ইজারা এবং মৎস্যজীবীদের কার্ড প্রণয়নে উপজেলা নির্বাহী অফিসার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিক পালন করে থাকেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অব্যাহত প্রচেষ্টায় উপজেলায় সার্টিফিকেট মামলা পেন্ডিং আছে মাত্র ২৫টি। কৃষি ঋণসহ সরকারী দাবী আদায় আইনে প্রায় এক কোটি টাকা আদায় হয়েছে। এছাড়া প্রথমবারের মতো তিনি তালা উপজেলার সকল কৃতি শিক্ষার্থীর সংবর্ধণার আয়োজন করে এলাকায় ভূয়সী প্রশংসা কুড়িয়েছেন। কৃষকের অধিকার আদায়ে কাজ করার পাশাপাশি তালা উপজেলাকে দুর্নীতিমুক্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। তালার গোপালপুর আম বাগানকে বিনোদন পার্ক হিসেবে প্রাথমিক কাজ শুরু করার পাশাপাশি ডে কেয়ার সেন্টার ও উপজেলা ডিজিটাল সেন্টারের কাজ চলমান রয়েছে। খলিশখালি রাস পুকুরের পানি পানযোগ্য করার প্রকল্পের কাজ চলছে। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজনের পাশাপাশি খেলাধুলারমানোউন্নয়নে বিভিন্ন টুর্নামেন্টের আয়োজন করা হয়েছে। তাঁর প্রচেষ্টায় সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি জনগণের দোড়গোরায় পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছে।

তালা প্রেসক্লাবের আহবায়ক প্রভাষক প্রণব ঘোষ বাবলু জানান, তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফরিদ হোসেন যোগদানের পর থেকে এক বছরে জলাবদ্ধতা নিরসন, ঈভটিজিং রোধ, বাল্য বিবাহ বন্ধে তাৎক্ষণিক কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণ, মাদক বিরোধী অভিযান, কপোতাক্ষ নদ থেকে অবৈধ বালি উত্তোলন, সরকারী জমি উদ্ধার, নদীর মাটিকাটা বন্ধসহ নানামূখী কর্যক্রমের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে সেবক হিসেবে পরিণত হয়েছেন।

তালা উপজেলার জালালপুর ইউপি চেয়ারম্যান এম মফিদুল হক লিটু বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কঠোর ভূমিকার কারণে ফেয়ার প্রাইজের কার্ডে কোন প্রকার অনিয়ম হয়নি। কোন অভিযোগ হলেই তিনি সাথে সাথে সেগুলো সংশোধন করতে সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানের নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া এক বছরে তিনি তালার জলাবদ্ধতা নিরসনের ও মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর ভূমিকা নিয়ে ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছেন। এছাড়া অসহায় দরিদ্র ব্যক্তিদের সাথে সরাসরি কথা বলে তাদের সমস্যা সমাধানে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেন তিনি।

তালা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ফরিদ হোসেন বলেন, সকল কাজে সমর্থন ও সাহস যুগিয়েছেন সাতক্ষীরা জেলার সুযোগ্য জেলা প্রশাসক আবুল কাশেম মোঃ মহিউদ্দিন ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এএফএম এহতেশামূল হক। আর অনুপ্রেরণা দিয়েছেন খুলনা বিভাগীয় কমিশনার আব্দুস সামাদ। সকল কাজে পাশে থেকে সমর্থণ ও নিরপেক্ষতা বজায়ে রাখতে শক্তি দিয়েছেন সাতক্ষীরা-০১ (তালা-কলারোয়া) আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড .মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, তালা থানার অফিসার-ইন-চার্জ মোঃ হাসান হাফিজুর রহমান এবং পাটকেলঘাটা থানার অফিসার-ইন-চার্জ মোঃ মহিবুল ইসলাম। এছাড়া সকল কাজের জন্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার করেছেন তালা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার, উত্তরণ পরিচালক শহিদুল ইসলামসহ সকল বীর মুক্তিযাদ্ধাবৃন্দ, রাজনৈতিক দলের নেতা ও কর্মী, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, জেলা পরিষদ সদস্যসহ সকল জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিকবৃন্দ,খেলোয়ার,ব্যবসায়ী,শিল্পকলা,ক্রীড়াসংস্থাসহ সকল সংগঠন, শিক্ষকবৃন্দ, এনজিও সমূহ,তালার সকল সুধিমহল, উপজেলা প্রশাসনের সহকর্মী সর্বোপরি সকল প্রেরণার উৎস তালা উপজেলার সাধারণ জনগণের।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • তালা মহিলা কলেজের উদ্যোগে মেধাবী ছাত্রীকে আর্থিক সহায়তা প্রদান
  • সরকারী আইন অমান্য করে খেশরায় চলছে কোচিং বানিজ্য
  • তালায় শালতা নদী নিয়ে পরিকল্পনা সভা ও স্মারকলিপি প্রদান
  • নিয়োগ দুর্নীতি : সাতক্ষীরার আশাশুনি শিক্ষা কর্মকর্তাকে হাইকোর্টে তলব
  • শালতা অববাহিকার জলাবদ্ধতা ও পরিবেশ সমস্যা মোকাবেলায় জনগণের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সংবাদ সম্মেলন
  • মেধাবী শামীমার পাশে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ও তালার ইউএনও
  • ‘আলোকিত শাহপুর’ এর নির্বাচন অনুষ্ঠিত
  • তালায় স্বামী-স্ত্রীর মারামারী ঠেকাতে গিয়ে লাঠির আঘাতে বড় ভাইয়ের মৃত্যু