অবৈধ পথে ভারতীয় গরুর মাংস আসায় স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে গোটা দেবহাটাবাসী

satkhira-news-logo-original-900

দেবহাটা প্রতিনিধি :: দেবহাটার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিনই ভারতে জবাই করা রোগাক্রান্ত গরুর মাংস বাংলাদেশে আসছে। বিক্রি হচ্ছে পাঁচপোতা, ভাতশালা, টাউনশ্রীপুর, ঘলঘলিয়া, গোপাখালিসহ বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে। ফলে যেমন বাড়ছে স্বাস্থ্য ঝূঁকি, অন্যদিকে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে দেশীয় কসাইরা।

সীমান্ত একাধিক সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় গরুর চোরাচালান কমে যাওয়ায় স্থানীয় ব্যবসায়ীরদের কাছ থেকে গরু ক্রয় করে কসাইয়েরা হাট-বাজারে মাংস বিক্রি করছে। গরুর মাংসের বর্তমান বাজার দর প্রতি কেজি ৪৮০-৫০০ টাকা হওয়ায় খেটে খাওয়া সাধারন মানুষের পক্ষে তা ক্রয় করে খাওয়া দুস্বার্ধ হয়ে পড়েছে। এ সুযোগে সীমান্তের এক শ্রেণীর অসাধু চোরাকারবারীরা ভারতে রোগাক্রান্ত গরু জবাই করে এনে উপজেলার সীমান্তবর্তী গ্রামসহ বিভিন্ন বাজারে বস্তাভর্তি করে এনে কম দামে বিক্রি করছেন।

চোরাকারবারীদের পাচার করে দেয়ার সময় যে সমস্ত গরু রোগাক্রান্ত ও দূর্বল হয়ে হাঁটতে পারে না, বিএসএফের বুলেটের আঘাত প্রাপ্ত অথবা ককটেল ছোঁড়া আঘাতে অসুস্থ হয়ে পড়া গরু গুলোকে ভারতের গরু চোরাচালানকারীরা ভারতীয় সীমান্তে জবাই করে বাংলাদেশের চোরাকারবারীদের কাছে হাতবদল করে বাংলাদেশে এনে প্রতি কেজি বিক্রি করছেন ৩২০-৩৫০ টাকা দরে। ভারতীয় গরুর মাংসের দাম কম হওয়ায় ফলে সীমান্তবর্তী এলাকার লোকজনসহ গোটা উপজেলার জনসাধারণ ভারতীয় গরুর মাংসের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পড়ছেন।

এ দেশীয় ভারতীয় গরুর মাংস বিক্রেতা চর-রহিমপুরের খোরশেদ আলী জানান, গরুর মাংসগুলো রোগাক্রান্ত গরুর নয়। চোরাই পথে গরু আনতে অনেক খরচ হওয়ায় কেটে আনলে কম দামে পাওয়া যায়। আমি ছাড়া অনেকেই এ ব্যবসা করছে। ক্রেতা টাউনশ্রীপুরের রুমন বলেন, যাদের কাছে মাংস ক্রয় করছি তারা আমাদের বিশ্বস্থ লোক। কাজেই কোন রকম সন্দেহ করিনা।

স্থানীয় গরু ব্যবসায়ী এবাদুল ইসলাম জানান, আগের মত আর গরুর মাংস বিক্রি করতে পারছি না। কেননা ভারতীয় গরুর মাংস কম দামে পাওয়ায় সেদিকে ঝুঁকছে। যেখানে প্রতিদিন দু’টো গরু জবাই করে মাংস বিক্রি করতাম, এখন একটা গরুর মাংসই বিক্রি হয় না।

এ বিষয়ে স্থানীয় চিকিৎসকদের মতে বড় ধরনের রোগ ছড়াতে পারে বলে মনে করছেন। তাই অতিসত্তর অবৈধ পথে প্রবেশ করা ভারতীয় মাংস আনা বন্ধ করতে বিজিবি সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • দেবহাটায় রপ্তানী যোগ্য উন্নত মানের চিংড়ী উৎপাদনে কর্মশালা
  • দেবহাটায় ডিজিটাল মেলা ও ইন্টারনেট সপ্তাহের উদ্বোধন
  • দেবহাটায় সরকারের অর্জন ও উন্নয়ন ভাবনা নিয়ে চলচিত্র ও সঙ্গীত অনুষ্ঠান
  • দেবহাটায় বজ্রপাতে নিহত অসহায় পরিবারে পাশে দাঁড়ানোর আবেদন
  • দেবহাটায় বিশ্ব মা দিবসে র‌্যালি ও আলোচনা সভা
  • দেবহাটায় সরকারের অর্জন ও উন্নয়ন ভাবনা বিষয়ক মতবিনিময়
  • প্রচন্ড তাপদাহে জনজীবন ব্যাহত ”বিদ্যুৎ যেন এক সোনার হরিণ”